ফেসবুক ব্যবহারকারী এখন ২০০ কোটির ওপরে। ব্যবহারকারীর নিরাপত্তার বিষয়টিকে এখন বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। ভুয়া ও সন্দেহজনক অ্যাকাউন্টগুলো বন্ধ করতে কাজ শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। বিশেষ করে বট বা সফটওয়্যার সৃষ্ট অ্যাকাউন্টগুলো ধরতে ব্যবস্থা নিচ্ছে। কারও অ্যাকাউন্ট সন্দেহজনক মনে হলে ফেসবুক এখন তা প্রকৃত অ্যাকাউন্টের প্রমাণ চাইছে। মুখের ছবি স্পষ্ট দেখা যায়, এমন ছবি আপলোড করতে বলছে।

ফেসবুক নতুন ধরনের ক্যাপচা পরীক্ষা চালাচ্ছে। এর মাধ্যমে মানুষের মুখের ছবি দেখে প্রকৃত ব্যবহারকারী, নাকি সফটওয়্যার, তা ধরার চেষ্টা করছে তারা। ফেস ভেরিফিকেশন পদ্ধতিটি ব্যবহারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে কর্তৃপক্ষ।

গত মঙ্গলবার টুইটার ব্যবহারকারী ফ্লেক্সলিব্রিস একটি স্ক্রিনশট পোস্ট করেন, যাতে নতুন ভেরিফিকেশন পদ্ধতিটি দেখানো হয়। ওই স্ক্রিনশটে দেখা যায়, পরিচয় শনাক্ত করতে মুখের ছবি স্পষ্ট দেখা যায় এমন ছবি আপলোড করতে বলছে। পরিচয় নিশ্চিত করার পর ছবিটি সার্ভার থেকে মুছে ফেলার কথাও বলা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ফেসবুকের এক মুখপাত্র বলেছেন, ছবির ওই পরীক্ষাটি মূলত সন্দেহজনক অ্যাকাউন্টগুলো ধরতে ব্যবহার করা হচ্ছে। বিশেষ করে নতুন অ্যাকাউন্ট খোলার সময়, কারও সঙ্গে যোগাযোগের সময়, নতুন বন্ধুর অনুরোধ করার সময়, বিজ্ঞাপন সংশ্লিষ্ট কাজের সময়েও এ পরীক্ষা দেওয়া লাগতে পারে।

এই পরীক্ষার সময় যে ছবি দেওয়া হবে তা স্বয়ংক্রিয় ও ম্যানুয়াল পরীক্ষা করে দেখা হতে পারে।

গত এপ্রিলেও এ ধরনের ভুয়া অ্যাকাউন্ট ধরার কথা জানিয়েছিল ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশের অনেক ব্যবহারকারী হঠাৎ ফেসবুক বন্ধ পান। ওই সময় বাংলাদেশ থেকে তিন দিনে নয় লাখ অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যায়।

ফেসবুক ১২ এপ্রিল এক বিবৃতিতে জানায়, ভুয়া অ্যাকাউন্ট ঠেকানোর কার্যকর উপায় হিসেবে ‘স্প্যাম অপারেশন’ কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, সৌদি আরবসহ অন্য কয়েকটি দেশ থেকে আসা ভুয়া লাইক ও মন্তব্য ঠেকাতে এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। তবে এই কার্যক্রমের মাধ্যমে সব ভুয়া অ্যাকাউন্ট বন্ধ করা সম্ভব হবে না বলে স্বীকার করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

ফেসবুক যদি কারও ছবি যাচাই করার জন্য তা চেয়ে বসে তবে ওই সময় অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়। ফলে ব্যবহারকারী আর ফেসবুকে ঢুকতে পারেন না।
একটি বার্তায় দেখানো হয়, আপনি এখন আর লগ ইন করতে পারবেন না। আপনার ছবি পর্যালোচনা করে দেখে আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করা হবে। নিরাপত্তার জন্য এখন আপনি ফেসবুক ব্যবহার করতে পারবেন না।

যাঁদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে বলে সন্দেহ হবে তাঁরা (Facebook.com/hacked) ঠিকানায় যেতে পারেন। তথ্যসূত্র: এনডিটিভি।

Share.

About Author