বাংলাদেশ ভ্রমণে আসছে রোবট মানবী সোফিয়া। সৌদি আরব সোফিয়াকে নাগরিকত্ব দিয়েছে। সে হিসেবে তার তো পাসপোর্ট-ভিসা লাগার কথা। কিন্তু বাংলাদেশে আসতে কি তার ভিসা-পাসপোর্ট লাগছে?

তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সোফিয়া যেহেতু রোবট, তাই তার কোনো ভিসা-পাসপোর্ট লাগবে না। সোফিয়া আসবে বাক্সের ভেতর। সৌদি আরবের পক্ষ থেকে তাকে যে নাগরিকত্ব দেওয়া হয়েছে, সেটা স্মারক। তাই সৌদি নাগরিক হলেও আলাদা করে সোফিয়ার জন্য কোনো পাসপোর্ট-ভিসার প্রয়োজন নেই।

ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড উপলক্ষে সোফিয়াকে আমন্ত্রণ জানানোর বিষয়টি জানান তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ। ৬ ডিসেম্বর ঢাকায় শুরু হতে যাওয়া দেশের বৃহত্তম তথ্যপ্রযুক্তি সম্মেলন ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের উদ্বোধনী দিনে সোফিয়া বাংলাদেশ ভ্রমণে আসছে বলে নিশ্চিত করেছে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগ।

৬ ডিসেম্বর সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেবে সোফিয়া। অনুষ্ঠানে অতিথিদের সঙ্গে কথা বলবে সে। মেলা উদ্বোধনের পর একটি অনুষ্ঠানে অংশ নেবে সোফিয়া। এতে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলবে এবং প্রশ্নের উত্তরও দেবে। সোফিয়ার সঙ্গে ঢাকায় আসছেন এই রোবটের ডিজাইনার ডেভিড হ্যানসন। তিনি সোফিয়াকে নিয়ে একটি কারিগরি অধিবেশনে বক্তৃতা করবেন। সেখানে তিনি সোফিয়ার কারিগরি দিক ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে কথা বলবেন। সেদিনই সোফিয়া ঢাকা ত্যাগ করবে।

সোফিয়া ইংরেজিতে কথা বলে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কৃত্রিম বুদ্ধিমান সোফিয়ার কণ্ঠে বাংলা শুনলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না! তবে বিষয়টি নিশ্চিত নয়। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ইতিমধ্যে একটি বার্তা পাঠিয়েছে সোফিয়া।

সোফিয়া দেখতে হলিউড অভিনেত্রী অড্রে হেপবার্নের মতো। কোনো প্রশ্ন করলে সে স্মিত হেসে গুছিয়ে উত্তর দিতে পারে। তবে এখনো পরিপূর্ণ নয় সে। মাথার পেছনের দিকটি চিপ আর যন্ত্রপাতিতে ঠাসা। গত অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে সৌদি আরব সোফিয়াকে নাগরিকের মর্যাদা দেয়। এরপরই আলোচনায় আসে সে। পরে এক সাক্ষাৎকারে নিজের পরিবার গঠন ও সন্তান ধারণের ইচ্ছা প্রকাশ করে এ রোবট। সোফিয়ার ভাষ্য, পরিবার খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার। একটি মেয়েসন্তানের খুব শখ তার। নিজের নামের সঙ্গে মিলিয়ে মেয়ের নাম রাখতে চায় সে।

মূলত মানুষের সঙ্গে কথা-বার্তা চালানোর উদ্দেশ্যে প্রোগ্রাম করা হয়েছে সোফিয়াকে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন সোফিয়া বিভিন্ন মুখভঙ্গি ফুটিয়ে তোলার পাশাপাশি কৌতুকও করতে পারে। কোনো প্রশ্নের উত্তর জানতে চাওয়া হলে ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কের সাহায্যে বিশাল তথ্যভান্ডার থেকে ‘মেশিন লার্নিং’ পদ্ধতিতে প্রশ্নের জবাব দেয়। ২০১৫ সালের ১৯ এপ্রিল সোফিয়াকে প্রথম সক্রিয় করা হয়।

সোফিয়ার রূপকার ডেভিড হ্যানসনের ভাষ্য, এতে ফেসিয়াল রিকগনিশন ব্যবহার করা হয়েছে। আছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, ভিজুয়াল ডেটা প্রসেস করার ক্ষমতা। এটি মানুষের মুখের অঙ্গভঙ্গি নকল করতে ও মুখভঙ্গি দেখাতে পারে। নির্দিষ্ট কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সাধারণ কথোপকথন, বিশেষ করে কোনো বিশেষ বিষয়ের ওপর আলোচনা চালাতে পারে। এখন গুগলের মূল প্রতিষ্ঠান অ্যালফাবেটের ভয়েস রিকগনিশন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহৃত হওয়ায় ভবিষ্যতে এর কথোপকথন আরও উন্নত হবে। বাড়িতে বয়স্ক মানুষের সঙ্গী হিসেবে ও ঘরবাড়ি দেখাশোনা করতে, অনুষ্ঠান ও পার্কে মানুষের সাহায্যে কাজে লাগবে সোফিয়া। সামাজিক দক্ষতা মানুষের পর্যায়ে নিয়ে মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবে সোফিয়া।

Share.

About Author