গেমের শুরুতে প্রতিপক্ষ কে ঠিক বুঝতে পারেননি ডোটা টু গেমের বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ড্যানিলো ‘ডেন্ডি’ ইসুতিন। প্রতিপক্ষের কাছে গো হারা হেরে বুঝলেন তিনি আসলে খেলেছেন তাঁর চেয়ে কৌশলী এক গেমারের কাছে। প্রতিপক্ষ মানুষ নয়, কৃত্রিম বুদ্ধিমান একটি সিস্টেম।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা শুধু ‘গো’ গেমের ক্ষেত্রে মানুষকে হারিয়ে দিয়ে থেমে নেই। ই-স্পোর্টসের ক্ষেত্রেও মানুষকে হারিয়ে দিতে শুরু করেছে কৃত্রিম বুদ্ধিমান বট। প্রযুক্তি উদ্যোক্তা এলন মাস্কের ওপেনএআই টিম এমনই একটি মেশিন লার্নিং সিস্টেম বা বট তৈরি করেছে। সিস্টেমটি ডোটা টু গেমের বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ডেন্ডিকে হারিয়ে দিয়েছে।

গেম নির্মাতা ভালভ করপোরেশনের বার্ষিক ই-স্পোর্টস দ্য ইন্টারন্যাশনাল ২ কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলার মূল্যমানের টুর্নামেন্ট। সেখান থেকে ডেন্ডি বনাম কৃত্রিম বুদ্ধিমান বটের লড়াই সরাসরি সম্প্রচার করা হয়। প্রদর্শনী ওই ম্যাচে ওপেনএআইয়ের তৈরি বটটি ডেন্ডিকে চমকে দিয়েছে। মাত্র ১০ মিনিট ওই বটের সামনে টিকতে পেরেছেন বিশ্বের নামকরা এই খেলোয়াড়। পরের ম্যাচ শেষ হওয়ার আগেই ছেড়ে দেন ড্যান্ডি। তৃতীয় ম্যাচটি খেলতে অস্বীকৃতি জানান তিনি।

সিস্টেমটিকে গেম খেলতে দেওয়ার আগে বিভিন্ন বিষয়ে শেখানো হয়। পরে তা থেকে বটের সঙ্গে গেম খেলে অভিজ্ঞতা অর্জন করে কৃত্রিম বুদ্ধিমান সিস্টেমটি। অবশ্য শিখতে বেশি সময় নেয়নি যন্ত্রটি। ওপেনএআইয়ের তৈরি সিস্টেমটি মাত্র এক ঘণ্টা শিখেই প্রচলিত ডোটা টুর বটগুলোকে হারায়। সে ক্ষেত্রে সেরা গেমারকে হারাতে সময় লেগেছে মাত্র দুই সপ্তাহ। অবশ্য নিয়ন্ত্রিত ও বিশেষ পরিস্থিতিতে এ জয় পেয়েছে সিস্টেমটি। ওয়ান-টু-ওয়ান বা পরস্পরের মুখোমুখি গেমের এ পদ্ধতি খুব বেশি জটিল নয়।

প্রচলিত পাঁচজনের টিমের সঙ্গে খেলা হলে গেমাররা যে কৌশল দেখাতে পারেন, তা এখনো এ সিস্টেমের আওতায় আসেনি। আগামী বছর পাঁচজনের বিরুদ্ধে সরাসরি গেম খেলার জন্য ওপেনএআইয়ের সিস্টেমটি উন্নত করে তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন এর নির্মাতারা। তথ্যসূত্র: সিএনএন।

Share.

About Author