অ্যাপল ওয়াচ, স্যামসাংয়ের গিয়ার, গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ওয়্যারের মতো স্মার্ট ঘড়িকে টেক্কা দিতে নতুন স্মার্টওয়াচ আয়নিক ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছে ফিটবিট। এটিই হবে ফিটবিটের প্রথম প্রকৃত স্মার্টঘড়ি, যা আগামী অক্টোবর থেকে বাজারে পাওয়া যাবে।

আয়নিক স্মার্টঘড়ির বিশেষ দিক হলো, এটি এর নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম এবং অ্যাপে চলবে। এটি পাওয়া যাবে প্রতিষ্ঠানটির তারহীন হেডফোন ফিটবিট ফ্ল্যায়ার এবং ওজন মাপার স্মার্ট যন্ত্র আরিয়া ২-এর সঙ্গে।

ফিটবিট সাধারণত ফিটনেস ব্যান্ড বা ঘড়ি তৈরি করে থাকে। তবে আয়নিককে প্রতিষ্ঠানটির প্রথম প্রকৃত স্মার্টওয়াচ বলার মূল কারণ হলো, এটিতে গতিবিধির ওপর নজর রাখা, এনএফসি অর্থ পরিশোধ, গান বাজানোসহ স্মার্টঘড়ির প্রায় সব সুবিধাই থাকছে। আয়নিকই ফিটবিটের প্রথম যন্ত্র, যাতে থাকবে নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম ফিটবিট ওএস এবং অ্যাপ গ্যালারি।

স্মার্টঘড়িটির বিশেষত্ব হলো এর নকশা। ব্যবহারকারীদের কথা মাথায় রেখে ঘড়িটি বেশ পাতলা করা হয়েছে। এর রয়েছে উজ্জ্বল পর্দা, যা ঘরে-বাইরে এমনকি সুইমিংপুলেও সমান কাজ করতে পারে। উজ্জ্বল রোদেও ঘড়িটির পর্দা বেশ পরিষ্কারভাবেই দেখা যায়। বলা যায় আয়নিক সেন্সর এবং প্রযুক্তিতে পরিপূর্ণ।

এই ঘড়ির সঙ্গে ভালো মানের গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস), অ্যাক্সিলারোমিটার, জাইরোস্কোপ, অল্টিমিটার ও অ্যাম্বিয়েন্ট লাইট সেন্সর থাকছে। এ ছাড়া রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির পিওরপালস হৃৎকম্পনের হার পর্যবেক্ষণ সুবিধা এবং দেহের উত্তাপ নির্ণয় করার সুবিধাও যোগ হবে এই ঘড়িতে। অপটিক্যাল সেন্সরের সাহায্যে রক্তের চাপও মাপা যাবে। এ ছাড়া ঘড়িটি দিয়ে ব্যায়াম করার সময় শরীরের ওপর নজর রাখার সুবিধা তো থাকছেই।

আয়নিক সম্পূর্ণভাবে পানিরোধী। পানির প্রায় ৫০ মিটার গভীরেও বেশ ভালোভাবেই কাজ করতে পারে। সাঁতার কাটার সময়ও ঘড়িটি নজর রাখতে পারবে শরীরের বর্তমান অবস্থার ওপর। ঘড়িটিতে ভালোমানের টাচস্ক্রিন থাকছে। আর থাকছে ২.৫ গিগাবাইট তথ্য ধারণ করার সুবিধা।

এত কিছুর পর একটাই প্রশ্ন জাগবে, ঘড়িটির ব্যাটারি কতটা স্থায়ী হবে। ফিটবিটের দাবি, স্বাভাবিকভাবে ঘড়িটি একবার পুরো চার্জ করলে চার দিন পর্যন্ত তা থাকবে। তবে জিপিএস চালু অবস্থায় টানা ১০ ঘণ্টা চলতে পারবে। এটি অবশ্যই প্রতিযোগিতায় এগিয়ে রাখবে ঘড়িটিকে। এর দাম ধরা হয়েছে ২৯৯.৯৫ মার্কিন ডলার।

সূত্র: ম্যাশেবল

Share.

About Author